যদিও টফিস’দের হাতে অন্যান্য রেলিগেশন প্রত্যাশীদের চেয়ে একটি খেলা বেশি রয়েছে, তবুও দলটির ভক্তরা, খেলোয়াড়েরা এবং প্রশাসন সকলেই চিন্তিত থাকবেন তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে। রেলিগেশন থেকে বাঁচার লড়াইয়ে তাদের সামনে এবার এক বিশাল পাহাড় হিসেবে উপস্থিত হয়েছে চেলসি। গুডিসন পার্কে এই খেলাটির মাহাত্ম্য অপরিসীম এভারটনের জন্য। চেলসিও এই ম্যাচটি জিতে ৩য় পজিশনটি পুরোপুরি নিজেদের করে নিতে চাইবে, যদিও তারা এই ম্যাচটি খেলার ঠিক ৩ দিন আগেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে খেলার কারণে কিছুটা ক্লান্ত থাকতে পারে।

অবিশ্বাস্য শোনালেও সত্যি যে, এভারটনের সাম্প্রতিক ফর্ম কিন্তু বেশ ভালোই। তারা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ১-০ গোলে হারিয়েছে, লেস্টার সিটির সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছে, এবং অসাধারণ ফর্মে থাকা লিভারপুলের কাছে ২-০ গোলে হারলেও ম্যাচটিতে খুবই আশাজনক পারফর্মেন্স উপহার দিয়েছে।

তাদের এই সিজনের অন্যতম উৎকৃষ্ট একটি পারফর্মেন্সে এভারটন চেলসিকে স্ট্যাম্ফোর্ড ব্রিজে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছিল। এই ম্যাচে তাদেরকে আরো সাহস দিবে এই ব্যাপারটি যে, চেলসির বিপক্ষে তারা তাদের সর্বশেষ তিনটি হোম ম্যাচেই জয় পেয়েছে।

 

পড়ুন:  নিউকাসল বনাম ফুলহাম প্রিভিউ
Share.
Leave A Reply