ম্যানচেস্টার সিটি তাদের ২০২২-২৩ চ্যাম্পিয়নস লীগ মৌসুমের সূচনা করবে লা লিগা জায়ান্টস সেভিয়ার মাঠ এস্তাদিও র‍্যামোন স্যাঞ্চেজ পিছুয়ান এ সফর করার মাধ্যমে।

চ্যাম্পিয়নস লীগের গ্রুপ জি থেকে সামনে এগুনো এবং গ্রুপটিতে শীর্ষ স্থান দখলের জন্য অবশ্যই প্রিমিয়ার লীগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটিই হট ফেভারিট। এমনকি, অনেকের মতেই এবারের চ্যাম্পিয়নস লীগ শিরোপাটি জেতার জন্যও তারাই ফেভারিট। তবে, গত বেশ কিছু মৌসুম ধরে তেমনটিই শোনা গিয়েছে, যদিও তা এখনো পর্যন্ত বাস্তবে রূপ নেয়নি।

বিগত দুইটি মৌসুমেই ম্যানচেস্টার সিটি চ্যাম্পিয়নস লীগের সেমি ফাইনাল স্টেজ পর্যন্ত যেতে পেরেছে, যার মধ্যে একবার তারা ফাইনালও খেলেছে। তাই, এবারও যদি তারা টুর্নামেন্টটিতে একটি দূর্দান্ত সূচনা করে, তবে তাতে বিষ্ময়ের কিছুই থাকবে না।

২০১৬ সালে ম্যানচেস্টার সিটি শিবিরে যোগ দেওয়ার পর থেকে শুধুমাত্র চ্যাম্পিয়নস লীগই এমন একটি শিরোপা যা পেপ গার্দিওলা ঘরে তুলতে পারেননি। অনেকেই মনে করেন যে, চ্যাম্পিয়নস লীগ শিরোপা জেতার জন্য ম্যানচেস্টার সিটি’র যে বিষয়টি এতদিন লাপাত্তা ছিল, সেটি হল একজন বিশ্বমানের স্ট্রাইকার, এবং এবারের গ্রীষ্মকালীন ট্রান্সফার উইন্ডোতে তারা আর্লিং হাল্যান্ডকে দলে ভেড়ানোর মাধ্যমে সেই সোনার হরিণটিও হাতে পেয়েছে।

 

ফর্ম বিবরণীঃ সেভিয়া (Form Guide: Sevilla)

সেভিয়া’র বর্তমান ফর্ম তাদের কোচিং স্টাফ এবং সমর্থকদের মধ্যে কোনরকম আশাই জাগাতে সক্ষম হবে না, বিশেষ করে যখন তাদের চ্যাম্পিয়নস লীগ মৌসুমের সূচনা হতে যাচ্ছে একটি ক্ষুধার্ত ম্যানচেস্টার সিটি দলের বিরুদ্ধে।

এবারের (২০২২-২৩) লা লিগা মৌসুমে জুলেন লোপেতেগুই এর শিষ্যরা খুবই বাজে সূচনা করেছে। তারা তাদের প্রথম ৪টি ম্যাচের মধ্যে ৩টিতেই পরাজয় বরণ করেছে, এবং সম্ভাব্য ১২ পয়েন্টের মধ্য থেকে অর্জন করতে পেরেছে মাত্র একটি পয়েন্ট।

তাদের এই দূর্দিনের প্রধান কারণ হিসেবে বার বার উঠে এসেছে তাদের অসফল আক্রমণভাগ, কারণ মৌসুমের প্রথম চারটি ম্যাচে তারা শুধুমাত্র ৩টি গোল করতে সক্ষম হয়েছে। তাদের সর্বশেষ ম্যাচে তারা একটি অগোছালো বার্সা দলের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়, এবং তারা চাইবে যেন সেই পরাজয়টিকে পেছনে ফেলে তারা খুব শীঘ্রই আবারও ভালো ফর্মে ফিরে আসতে পারে।

পড়ুন:  চেলসি বনাম ওলভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স (Chelsea Vs Wolverhampton Wanderers)

তবে, এমনটি বরাবরই দেখা গিয়েছে যে, ঘরোয়া লীগে বাজে পারফর্মেন্সের পরও অনেক দলই মহাদেশীয় টুর্নামেন্টে খুব ভালো পারফর্ম করতে পারে, কারণ এমন বিশাল প্রতিযোগিতায় খেলতে পারাটাও সেসকল দলের জন্য সৌভাগ্যের বিষয়। তাই, সেভিয়াও চাইবে সকল গ্লানি মুছে ফেলে তাদের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করতে, এবং ইংলিশ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি’র বিরুদ্ধে একটি অঘটন ঘটাতে।

 

ফর্ম বিবরণীঃ ম্যানচেস্টার সিটি (Form Guide: Manchester City)

পেপ গার্দিওলা নিশ্চয় চেয়েছিলেন তার দলের চ্যাম্পিয়নস লীগ ক্যাম্পেইন শুরুর আগে একটি জয় তুলে নিতে, কিন্তু তাদের সর্বশেষ প্রিমিয়ার লীগ ম্যাচে একটি একগুঁয়ে এস্টন ভিলা ডিফেন্স প্রত্যাশার উর্ধ্বে গিয়ে তাদেরকে রুখে দিতে সক্ষম হয়, এবং তারা ম্যাচটি থেকে মাত্র এক পয়েন্ট নিয়েই ঘরে ফিরে আসে।

তবে, তার পরেও প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা এখনো পর্যন্ত তাদের ঘরোয়া লীগে অপরাজিত রয়েছে। কিন্তু, তাদের জন্য একটি বড়সড় চিন্তার বিষয় হল তাদের রক্ষণভাগ, কারণ এবারের মৌসুমে এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকটি ম্যাচেউ তাদের ডিফেন্স প্রচন্ড রকমে নড়বড়ে মনে হয়েছে। হয়তো সিটিজেনদের সেই দিকটিতে তাকালেও সেভিয়া কিছুটা মনোবল ফিরে পেতে পারে।

যত যাই হোক না কেন, চ্যাম্পিয়নস লীগ মৌসুমের প্রথম ম্যাচটিতে জয়লাভ করার জন্য ম্যানচেস্টার সিটি হট ফেভারিট। এছাড়া, সিটি’র জার্সি গায়ে চ্যাম্পিয়নস লীগে নিজের ছাঁপ ছাড়ার জন্যও মুখিয়ে থাকবেন ম্যান সিটি’র নতুন নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকার — আর্লিং হাল্যান্ড।

 

প্রেডিকশন (Prediction)

ম্যানচেস্টার সিটি মনেপ্রাণে চাইবে আবারো তাদের স্বভাবসুলভ জয়ের ধারায় ফিরে আসতে, এবং সেভিয়া’র বিরুদ্ধে তারা তাদের সবটুকু নিয়েই ঝাপিয়ে পড়বে বলেই মনে হচ্ছে। এবং, বিশ্বাস করুন, তাদের “সবটুকু” খুবই ভয়ানক হতে পারে। এছাড়া, যদিও প্রিমিয়ার লীগের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের ব্যাক লাইন এবারের মৌসুমে কিছু দিক দিয়ে বাজে পারফর্ম করেছে, তবুও এটি না বললেই নয় যে তাদের রক্ষণভাগে যথেষ্ট শক্তিমত্তা রয়েছে সেসকল ভুল খুব তাড়াতাড়ি শুধরে নেওয়ার জন্য, এবং সেভিয়া’র নিকটও এমন কোন আক্রমণাত্মক অস্ত্রসস্ত্র নেই যা দেখে তাদের মধ্যে আতঙ্কের উদ্রেক হবে।

পড়ুন:  বার্নলি বনাম আর্সেনাল রিপোর্ট

সিটি জিতুক বা নাই জিতুক, এবারের মৌসুমে আর্লিং হাল্যান্ড যে গোল পাবেন, সে ব্যাপারটি একরকম নিশ্চিতই হয়ে গিয়েছে। পেপ গার্দিওলা’র অধীনে প্রিমিয়ার লীগে এই নরওয়েজিয়ান সুপারস্টার ফরোয়ার্ড মাত্র ৬টি ম্যাচ খেলেই ১০ গোলের মাইলফলকটি অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।

২০১৯ সালে, যখন তিনি আরবি সালজবার্গের হয়ে খেলতেন, আর্লিং হাল্যান্ড তার চ্যাম্পিয়নস লীগ ডেব্যুতেই বেলজিয়ান ক্লাব কে আর সি গেঙ্ক এর বিপক্ষে হ্যাট্রিক করতে সমর্থ্য হয়েছিলেন। এমন কি কোন নিশ্চয়তা আসলেও আছে যে প্রতিযোগিতাটিতে ম্যানচেস্টার সিটি’র হয়ে তার ডেব্যু ম্যাচেও তিনি একই রকম কীর্তি গড়তে পারবেন না?

বর্তমান প্রেক্ষাপটে কোন দলের বিপক্ষেই সেভিয়া একেবারেই সুবিধা করে উঠতে পারছে না, এবং সেজন্যই আমরা এই ম্যাচটিতে প্রিমিয়ার লীগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি’র একটি সহজ জয়ই প্রেডিক্ট করছি।

সেভিয়া ০ – ৩ ম্যানচেস্টার সিটি

৩.৫ গোলের নিম্নে

ম্যানচেস্টার সিটি -২.০ (এশিয়ান হ্যান্ডিক্যাপ)

Share.

Leave A Reply