প্রেডিকশন (Prediction)

এস্টন ভিলা ২ – ১ সাউথ্যাম্পটন

১.৫ গোলের উর্ধ্বে

এস্টন ভিলা +১.০ (এশিয়ান হ্যান্ডিক্যাপ)

 

গুরুত্বপূর্ণ দিকসমূহ (Key Points)

  • সাউথ্যাম্পটন এর বিরুদ্ধে এস্টন ভিলা তাদের খেলা সর্বশেষ ৬টি ম্যাচের মধ্যে কেবল ২টিতেই জয় পেয়েছে। অন্যদিকে, সেই ছয়টি ম্যাচের মধ্যে বাকি ৪টি ম্যাচই জিতে নিয়েছে রাল্ফ হ্যাসেনহুটল এর সেইন্টস’রা।
  • ২০১৯-২০ মৌসুম থেকে শুরু করে প্রিমিয়ার লীগে এই দুই দলের মধ্যকার ম্যাচগুলিতে সর্বমোট ১৯টি গোল হয়েছে, যার মধ্যে ১০টি করতে সক্ষম হয়েছে সেইন্টস’রা, আর বাকি ৯টি গোল করার গৌরব অর্জন করেছে ভিলেইনরা।
  • ডিফেন্সের দিক দিয়ে সাউথ্যাম্পটনকে এবারের মৌসুমে এখন পর্যন্ত বেশ ভঙ্গুরই মনে হয়েছে। তাদের খেলা ৬টি প্রিমিয়ার লীগ ম্যাচের মধ্যে ৫টিতেই তারা গোল হজম করেছে। এখন পর্যন্ত তারা প্রিমিয়ার লীগে নিজেদের জালে সর্বমোট ৬টি গোল ঢুকতে দেখেছে।
  • প্রিমিয়ার লীগের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি’র বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে একটি দূর্দান্ত পারফর্মেন্স এর পরেই স্টিভেন জেরার্ডের এস্টন ভিলা দল এই ম্যাচটি খেলতে মাঠে নামবে। সিটি’র বিপক্ষে তারা একটি মূল্যবান ও আশ্চর্যজনক পয়েন্ট অর্জন করে, যদিও তা আরো বেশি হতে পারতো, যদি না লাইন্সম্যান ফিলিপ কুতিনহো’র করা অসাধারণ একটি গোল অফসাইডের কারণে বাতিল না করে দিতেন।

 

এস্টন ভিলা’র সাম্প্রতিক ফর্ম (Aston Villa Form Guide)

এস্টন ভিলা তাদের সর্বশেষ ৬টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র ২টিতে জয়ের দেখা পেয়েছে। বাকি চারটি ম্যাচের মধ্যে তারা ৩টিতেই পরাজয় বরণ করে, এবং কেবল ১টিতে ড্র করতে সক্ষম হয়।

 

সাউথ্যাম্পটনের সাম্প্রতিক ফর্ম (Southampton Form Guide)

রাল্ফ হ্যাসেনহুটল এর সেইন্টস’রা তাদের বিগত ৬টি ম্যাচের মধ্যে ৩টিতে জয়লাভ করতে পেরেছে। এছাড়া, বাকি তিনটি ম্যাচ থেকে তারা ২টি পরাজয় ও ১টি ড্র বের করে আনতে পেরেছে।

 

এস্টন ভিলা বনাম সাউথ্যাম্পটন সম্পর্কিত কিছু তথ্য (Aston Villa Vs Southampton Facts)

  • ভিলেইনরা এবারের মৌসুমে মাত্র ২টি ম্যাচে জয়লাভ করতে সক্ষম হয়েছে।
  • সেইন্টস’রা বর্তমান মৌসুমে প্রিমিয়ার লীগে একটি ব্যতীত সকল ম্যাচেই গোল হজম করেছে।
  • তাদের সর্বশেষ ম্যাচে ওলভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স এর বিপক্ষে সাউথ্যাম্পটন গোল মুখে ১২টি শট মেরেছিল, যার মধ্যে অন-টার্গেট ছিল মাত্র একটি।
  • স্টিভেন জেরার্ডের এস্টন ভিলা দলটি এবারের মৌসুমে এ পর্যন্ত একটি ক্লিন শিটও রাখতে পারেনি, যদিও ৬টি ম্যাচের মধ্যে ৫টিতেই তারা নিজেরা গোল করতে পেরেছে।
পড়ুন:  লিভারপুল বনাম এভারটন প্রিভিউ

 

যেসকল গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের উপর সকলের নজর থাকবে (Key players to watch out for)

জেমস ওয়ার্ড-প্রাউস (সাউথ্যাম্পটন) [James Ward-Prowse (Southampton)]

ডিফেন্স হোক বা গোল করা, ট্যাকলিং হোক বা পাসিং, সবকিছুতেই যেন সমান পারদর্শী সেইন্টস অধিনায়ক জেমস ওয়ার্ড-প্রাউস। তার অসাধারণ সেট পিস দক্ষতা এবং দূর্দান্ত স্থিতিশীলতা সেইন্টস সমর্থকদের মন তো জয় করেছেই, বিশ্বজুড়ে লাখো ফুটবল ভক্তদেরকে বিষ্মিতও করেছে। এছাড়া, তার আরেকটি বিশাল গুণ হচ্ছে তার ধারাবাহিকতা। সেইন্টস’রা যে দলেরই মুখোমুঝি হোক না কেন, তাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়, যিনি মিডফিল্ডে দলটির কলকাঠি নাড়ান, হলেন জেমস ওয়ার্ড-প্রাউস।

 

ওলি ওয়াটকিন্স (এস্টন ভিলা) [Ollie Watkins (Aston Villa)]

দুই বছর পূর্বে ওলি ওয়াটকিন্স লিভারপুলের বিরিদ্ধে হ্যাট্রিক করে পুরো প্রিমিয়ার লীগকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন। তারপর থেকে বেশ ঘন ঘন গোল করার একটি অভ্যাস তিনি তৈরি করে নিলেও বর্তমান মৌসুমে সেটির পুনরাবৃত্তি তিনি করতে পারছেন না। চলমান মৌসুমে তিনি শুধুমাত্র একবারের জন্য প্রতিপক্ষের জালে বল জড়াতে পেরেছেন। তবে, তিনি গোল না করলেও দলের বিল্ড-আপে সাহায্য করে তারা পুষিয়ে দেন। তার গতিশীলতা এবং ডি বক্সের ভেতরে তার সুচতুরতাই তাকে করে তুলেছে এস্টন ভিলা’র অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়, এবং প্রিমিয়ার লীগের অন্যতম প্রতিভাবান একজন ফরোয়ার্ড।

Share.
Leave A Reply