প্রেডিকশন (Prediction)

এএফসি বোর্নমাউথ ২ – ১ লেস্টার সিটি

২.৫ গোলের উর্ধ্বে

এএফসি বোর্নমাউথ +১.০ (এশিয়ান হ্যান্ডিক্যাপ)

 

গুরুত্বপূর্ণ দিকসমূহ (Key Notes)

  • এটি হতে চলেছে প্রিমিয়ার লীগে এএফসি বোর্নমাউথের ১০০তম হোম ম্যাচ — এই মাইলফলকটিতে পৌছানো সর্বশেষ ৮টি দলের মধ্যে মাত্র একটি দলই পেরেছে তাদের এই বিশেষ ম্যাচটি জিততে (৩টি ড্র, ৪টি পরাজয়)। সেই জয়টি এসেছিল অতি সম্প্রতি, যখন গত আগস্ট মাসে নটিংহ্যাম ফরেস্ট ১-০ গোলে হারিয়েছিল ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডকে।
  • এএফসি বোর্নমাউথ প্রিমিয়ার লীগে তাদের সর্বশেষ ৩টি হোম ম্যাচে কোন গোল করতে পারেনি। তাদের ইতিহাসে কেবলমাত্র একবারই এমন ঘটেছে যে তারা পর পর চারটি হোম ম্যাচে গোল করতে ব্যর্থ হয়েছে। তেমনটি হয়েছিল ২০০৫ সালের মার্চ-এপ্রিল মাসে, যখন তারা লীগ ওয়ান এ খেলতো।
  • যদিও তারা লীগ টেবিলের ১৯তম পজিশনে অবস্থান করছে, তবুও প্রিমিয়ার লীগে এমন শুধুমাত্র ৫টি দলই আছে যারা এবারের মৌসুমে লেস্টার সিটি’র (১৪টি) চেয়ে বেশি গোল করতে পেরেছে। লীগ টেবিলের নিম্নভাগে অবস্থিত যেকোন ক্লাবের থেকেই বেশি গোল করতে পেরেছে তারা। তবে, ফক্সেস’রা ইতিমধ্যে এই মৌসুমে মোট ২২টি গোল হজমও করেছে, এবং তারা যেসকল ম্যাচে অংশগ্রহণ করেছে, সেসকল ম্যাচে সর্বমোট ৩৬টি গোল হয়েছে, যা এই সংখ্যক ম্যাচে ১৯৬৫-৬৬ মৌসুমের পর থেকে প্রিমিয়ার লীগে তাদের জন্য সর্বোচ্চ। ম্যাট গিলিস এর অধীনে সেই মৌসুমে তারা ৮ ম্যাচ পর ১৬টি গোল স্কোর করেছিল, এবং হজম করেছিল ২১টি গোল (সর্বমোট ৩৭টি গোল ইনভলভমেন্ট)।

 

ফর্ম বিবরণী (সর্বশেষ ৫টি ম্যাচ) [Form Guide (Last 5 matches)]

এএফসি বোর্নমাউথঃ ড্র – ড্র – জয় – ড্র – পরাজয়

লেস্টার সিটিঃ জয় – পরাজয় – পরাজয় – পরাজয় – পরাজয়

 

ম্যাচটি সম্পর্কিত কিছু তথ্য (Match Facts)

  • এএফসি বোর্নমাউথ কখনোই লেস্টার সিটি’র বিরুদ্ধে কোন হোম ম্যাচে পরাজয় বরণ করেনি (৩টি জয়, ২টি ড্র)। ফক্সেস খ্যাত লেস্টার ব্যতীত আর কোন দলের বিরুদ্ধেই বোর্নমাউথ এত নিয়মিত হারে হোম ম্যাচ জিততে পারেনি তাদের ইতিহাসে।
  • এএফসি বোর্নমাউথের বিপক্ষে তাদের খেলা প্রথম ৭টি ম্যাচের সবকটিতেই হারার পর, লেস্টার সিটি চেরিস’দের বিরুদ্ধে তাদের খেলা সর্বশেষ ৩টি ম্যাচের মধ্যে ২টিতেই জয়লাভ করেছে (১টিতে পরাজয়)।
পড়ুন:  ফুলহ্যাম বনাম ম্যানচেস্টার সিটি রিপোর্ট

 

যেসকল গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের উপর সবার নজর থাকবে (Key players to watch out for)

ডমিনিক সোলাঙ্কি – এএফসি বোর্নমাউথ (Dominic Solanke – AFC Bournemouth)

সাবেক এই লিভারপুল স্ট্রাইকার বোর্নমাউথে যোগ দেওয়ার পর থেকেই প্রচন্ড রকমের ভালো খেলা উপহার দিয়ে আসছেন, এবং বিশেষ করে গত মৌসুমে তার অসাধারণ গোলস্কোরিং ফর্মের উপর ভর করেই প্রমোশন জিতেছিল বোর্নমাউথ। ইঞ্জুরি থেকে ফেরার পর থেকেই এবারের মৌসুমেও চেরিস সমর্থকদেরকে আশার আলো দেখিয়ে যাচ্ছেন এই লম্বা ফরোয়ার্ড।

 

জেমস ম্যাডিসন – লেস্টার সিটি (James Maddison – Leicester City)

যদিও লেস্টার দল হিসেবে খুবই বাজে সময় পার করছে, তবুও এই ইংলিশ মিডফিল্ডার এখন পর্যন্ত একটি স্মরণীয় মৌসুমই পার করছেন বটে। অন্যান্য ম্যাচেও ভালো খেলার পর তার করা জোড়াগোলের উপর ভর করেই গত উইকেন্ডে নটিংহ্যাম ফরেস্ট এর বিরুদ্ধে মৌসুমের প্রথম জয়টি তুলে নেয় লেস্টার সিটি। এই প্রতিভাবান ইংলিশ মিডফিল্ডার যেন সবাইকে নতুন করে তার জাত চেনাতে বদ্ধপরিকর।

Share.
Leave A Reply