প্রেডিকশন (Prediction)

ভেন্যুঃ খলিফা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম

ইংল্যান্ড ৩ – ০ ইরান

উভয় দেশের ইতিহাসেই প্রথমবারের মত কোন ফুটবল ম্যাচে মুখোমুখি হতে চলেছে ইংল্যান্ড এবং ইরান। ২০২২ সালের ফিফা বিশ্বকাপের গ্রুপ বি এর প্রথম এই ম্যাচটিতে ইংল্যান্ডই ফেভারিট, এবং তাদের একটি সহজ জয়ই প্রত্যাশিত।

২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে খুব ভালো পারফর্ম করে ৩য় স্থান অধিকার করার পর থ্রি লায়নস খ্যাত ইংল্যান্ড জাতীয় দল এবার বিশ্বকাপ শিরোপা জেতার জন্য অন্যতম ফেভারিট একটি দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। তিবে, অন্যদিকে ইরানও কোন অংশেই কম যায় না। তারা বর্তমানে ফুটবল বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত উন্নয়নশীল দেশগুলির মধ্যে একটি। ইরানকে এই উন্নতির পথে ধাবিত করেছিলেন জ্ঞানী কোচ কার্লস কুয়েরশ। মাঝে কিছুদিন কোচিং থেকে দূরে থাকার পর আবারও তিনি ইরানের কোচের দায়িত্বটি গ্রহণ করেছেন। তাই, তাদের আত্মবিশ্বাসও বর্তমানে আকাশচুম্বী।

ফর্ম বিবরণীঃ ইংল্যান্ড, (Form Guide: England)

ইংল্যান্ড বেশ কিছু ভালো বছর কাটানোর পর ২০২২ সালে এসে একের পর এক হোঁচট খেয়েই চলেছে। উয়েফা নেশনস লীগে, যা কি না সকল ইউরোপীয় দেশের জন্যই বিশ্বকাপের প্রস্তুতিমূলক টুর্নামেন্ট ছিল, তারা এতই বাজে পারফর্ম করেছে যে, রেলিগেটেড হয়ে এখন তারা সেই লীগটির দ্বিতীয় সারিতে অবস্থান করছে।

তাদের খেলা সর্বশেষ ৬টি ম্যাচের মধ্যে ইংল্যান্ড ৩টিতেই পরাজয় বরণ করেছে এবং বাকি ৩টিতে করেছে ড্র। বিশ্বকাপের শিরোপা জিততে চায় এমন একটি দলের জন্য এই রেকর্ডটি মোটেও ভালো ইঙ্গিত নয়। তবে, এমন পারফর্মেন্স এর একটি কারণ হতে পারে ইঞ্জুরির কারিণে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের অনুপস্থিতি। সেসকল খেলোয়াড়দের অধিকাংশই আবার ইঞ্জুরি কাটিয়ে দলে ফিরে আসায় ইংল্যান্ড সনর্থকরা কিছুটা হলেও হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন।

ফর্ম বিবরণীঃ ইরান (Form Guide: Iran)

বর্তমানে এশিয়ার যেকোন দেশের মধ্যে ফিফা র‍্যাংকিংয়ে সবচেয়ে উপরে অবস্থান করছে ইরান। তবে শুধু র‍্যাংকিং নয়, বিশ্বকাপের মত বড় একটি মঞ্চে এবার তাদের প্রমাণ করার পালা যে, বিশ্বের সব ফুটবলিং পাওয়ার হাউজের মধ্যে তাদেরও একটি স্থান প্রাপ্য। সাম্প্রতিক সময়ে তাদের ফর্ম বেশ ভালো হলেও, বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে তারা যেসকল দলের সম্মুখীন হয়েছে, তার সবগুলোই ছিল ইংল্যান্ডের থেকে দূর্বল।

পড়ুন:  এভার্টন vs ফুলম: দুটি দল মনোমুদ্রায় বিশাল মধ্য টেবিল সংঘর্ষের জন্য টান বন্ধ করেছে।

তবে, কাতারে অনুষ্ঠিতব্য ফিফা বিশ্বকাপ ২০২২ এর ঠিক পূর্বে উরুগুয়ে এবং সেনেগালের মত কঠিন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে খেলা দুইটি ম্যাচে তারা পরাজয় বরণ করেনি, যা তাদেরকে অনেকটা আত্মবিশ্বাস জোগাবে।

ম্যাচটিতে যা যা ঘটতে পারে (How the game could go)

যেহেতু এই দুই দল এর আগে কখনোই একে অপরের সম্মুখীন হয়নি, সেহেতু তাদের পূর্ববর্তী রেকর্ড অনুসারে কোন প্রকার প্রেডিকশন করাই সম্ভব নয়। তাই, এই ম্যাচটির প্রেডিকশন আমরা করেছি দুই দলের শক্তিমত্তা বিচার করে। যে যাই বলুক না কেন, কাগজে কলমে ইরানের থেকে অনেক শক্তিশালী দল হল ইংল্যান্ড। তবে, ইরানের দলেও এমন বেশ কিছু খেলোয়াড় রয়েছেন, যারা ইউরোপের ভালো ভালো সব দলে অনেক সময়কাল ধরেই বেশ ভালো পারফর্ম করে আসছেন। কিন্তু, তারপরও আমাদের মনে হয় যে, এই ম্যাচটিতে থ্রি লায়নস’দের একটি সহজ জয়ই কাম্য, কেননা ইংল্যান্ডের পুরো দল জুড়েই রয়েছে তারকাদের ছড়াছড়ি।

Share.
Leave A Reply