প্রেডিকশন (Prediction)

কাতার ১ – ২ সেনেগাল

ভেন্যুঃ আল থুমামা স্টেডিয়াম

আল থুমামা স্টেডিয়ামে ৪০,০০০ দর্শকের সামনে জমজমাট পরিবেশে একে অপরের মুখোমুখি হবে স্বাগতিক কাতার এবং আফ্রিকান চ্যাম্পিয়ন সেনেগাল। বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছানোর দৌড়ে এটি হতে চলেছে দুই দলের জন্যই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচ। বিশ্বকাপ খুবই আনপ্রেডিক্টেবল একটি টুর্নামেন্ট হলেও এই ম্যাচের ফলাফলই নির্ধারণ করে দিতে পারে এই গ্রুপ থেকে কোন দল পরের রাউন্ডে যাবে। এছাড়া, কাতারও এই ম্যাচটিকে একটি জেতার মত ম্যাচ হিসেবেই দেখবে, কারণ তাদের নিকট ঘরের মাঠে খেলার সুবিধাও রয়েছে, যা তাদের আত্মবিশ্বাসকে অনেকগুণে বাড়িয়ে দিতে সক্ষম। অন্যদিকে, যে ফর্মের উপর ভর করে সেনেগাল এবছরের শুরুতে আফ্রিকান কাপ অব নেশনস জিতেছিল, সেরকম ফর্মের পুনরাবৃত্তিই তারা এখানেও করতে চাইবে।

ফর্ম বিবরণীঃ কাতার (Form Guide: Qatar)

যেহেতু উভয় দলের নিকটই বেশ কিছু প্রতিভাবান অ্যাটাকার রয়েছে, যারা কি না তাদের গতি, দম ও দক্ষ ড্রিবলিং দিয়ে প্রতিপক্ষের ডিফেন্সকে চকমা লাগিয়ে দেওয়ার সামর্থ্য রাখেন, সেহেতু আমাদের মতে এই ম্যাচটির ফলাফল গড়ে দিবে কাতারের ডিফেন্স। সেটির উপরই নির্ভর করবে তারা রাউন্ড অব ১৬তে জায়গা করে নিতে পারবে কি না।

ফিনিশিং দক্ষতাও সেই পার্থক্যটি গড়ে দিতে পারে, কেননা সেনেগালের অধিকতর অভিজ্ঞ স্ট্রাইকারদের রেকর্ড কাতারের অপেক্ষাকৃত অনভিজ্ঞ স্ট্রাইকারদের রেকর্ড এর থেকে অনেকগুণে ভালো। দ্য মারুন আর্মি খ্যাত কাতার দল অবশ্যই ইকুয়েডরের বিপক্ষে তাদের প্রথম ম্যাচ থেকে অনেক কিছুই শিখতে পারবে, এবং সেই শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে ও সেনেগালের দূর্বলতা খুঁজে বের করে তারা আগামী ২৫ই নভেম্বর একটি জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে চাইবে।

ফর্ম বিবরণীঃ সেনেগাল (Form Guide: Senegal)

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডস এর বিপক্ষে একটি কঠিন ম্যাচের পরে কাতারকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়ে নিশ্চয় কিছুটা স্বস্তির নিশ্বাসই ফেলবে আলিউ ছিসে’র সেনেগাল। তাদের নিকট এমন অনেক অস্ত্রই রয়েছে এগুলি এই ম্যাচটিতে তাদের পক্ষে কাজ করবে, যার মধ্যে অন্যতম হল তাদের শক্তিশালী ডিফেনা, এবং তাদের বেশ প্রতিভাবান আক্রমণভাগ (যদিও সাদিও মানে ইঞ্জুরি নিয়ে মাঠের বাইরে)।

পড়ুন:  লেস্টার সিটি বনাম নটিংহ্যাম ফরেস্ট প্রিভিউ এবং প্রেডিকশনঃ ব্রেন্ডান রজার্স এর জন্য শেষ সুযোগ

তবে, এটি বলাই বাহুল্য যে, ম্যাচটির মূল পার্থক্যটি তৈরি হবে মিডফিল্ডে, এবং সেখানেও কাতারের থেকে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে সেনেগাল, যদিও এবছর তাদের গোলের সুযোগ তৈরির রেকর্ড খুব একটা আহামরি নয়। তবে, সেনেগালকে কোন একটি জায়গায় কুপোকাত করতে হলে সেটি নিশ্চয় কাতারের জন্য এই মাঝমাঠই হবে। ২০০২ বিশ্বকাপে, যখন শেষ বারের মত এশিয়ার মাটিতে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল, সেনেগাল কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছিল, এবং এবার সেটির পুনরাবৃত্তি বা তার থেকেও ভালো কিছু অর্জন করতে হলে তাদেরকে এধরণের ম্যাচগুলি সহজেই জিতে নিতে হবে।

ম্যাচটিতে যা যা ঘটতে পারে (How the game could go)

কাগজে কলমে দেখতে গেলে, কাতারের থেকে অনেকগুণে ভালো একটি দল হল সেনেগাল, এবং তাদের ফিফা বিশ্ব র‍্যাংকিংয়েও তারই প্রতিফলন সুস্পষ্টভাবে দেখা যায়। এই দুই দল এর আগে কখনোই একে অপরের মুখোমুখি হয়নি, তাই এই ম্যাচ সম্পর্কে কোন হেড টু হেড তথ্যের উপস্থিতি শূন্য। তবে, এটি একটি জমজমাট ম্যাচ হলেও শেষ পর্যন্ত সেনেগালের জয়ের সম্ভাবনাই বেশি থাকবে ম্যাচটিতে।

Share.
Leave A Reply