সূচিপত্র (Table of contents)

    • ভূমিকা
    • ফিরে দেখা – মৌসুমের শুরুতে করা আমাদের প্রেডিকশন
    • আমাদের করা প্রেডিকশনসমূহ কতটুকু সত্যি হল?

    ভূমিকা (Introduction)

    প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান মৌসুমের কেবলমাত্র একটি ম্যাচডে শেষ হওয়ার পর আমরা অতি সাহসী একটি কাজ করি — প্রিমিয়ার লীগের চলতি মৌসুমকে সামনে রেখে কিছু আর্লি সিজন প্রেডিকশন আমরা আপনাদের সামনে তুলে ধরি, যা কি না একান্তই আমাদের নিজস্ব মন্তব্য ও চিন্তাধারার অভিপ্রকাশ ছিল।

    এখন যেহেতু শীতকালীন বিশ্বকাপ ফুটবলের কারণে প্রিমিয়ার লীগ ফুটবল স্থগিত বা বিশ্রামে রয়েছে, সেহেতু আমরা কিছুটা সময় পেয়েছি ফিরে দেখার। তাই, আমরা এখন এক নজর ফিরে দেখব আমাদের করা সেসকল প্রেডিকশন এর দিকে, এবং বিচার করে দেখব সেগুলি এখনও কার্যকর আছে নাকি অনেক আগেই পানিতে ডুবে মরেছে।

    ফিরে দেখা – মৌসুমের শুরুতে করা আমাদের প্রেডিকশন (Recap – Early season predictions)

    লেস্টার সিটি রেলিগেশনের লড়াইয়ে সামিল থাকবে (Leicester City risk relegation)

    আমাদের জন্য দুঃখজনক হলেও লেস্টার সিটি’র জন্য একটি সুসংবাদ হল এই যে, বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে এই প্রেডিকশনটিকে বেশ বোকা বোকাই লাগছে। তবে, কোন ফুটবল সমর্থকই এটি বলতে পারবেন না যে, মৌসুমের শুরুতে তারা লেস্টারের পরিস্থিতি দেখে তাদের জন্য ভয় পাননি। মৌসুম শুরুর আগে তারা উত ফায়েস ব্যতীত আর একজন খেলোয়াড়কেও দলে ভেড়াতে পারেননি। এবং মৌসুম শুরুর পর প্রিমিয়ার লীগে খেলা তাদের প্রথম ৭টি ম্যাচে তারা পয়েন্ট টেবিলে কেবলমাত্র একটি পয়েন্টই যুক্ত করতে পেরেছিল। সেই যাত্রায় তারা লীগের সর্বোচ্চ ২২টি গোল হজম করেছিল, এবং অবশ্যই লীগ টেবিলের তলানিতেই অবস্থান করছিল।

    ফক্সেস’দের জন্য যেন কোন পন্থাই কাজে দিচ্ছিল না, এবং এক মুহূর্তের জন্য এমনটিই মনে হচ্ছিল যে আমাদের করা প্রেডিকশনটিকে সত্য প্রমাণিত করে তারা এবারের মৌসুমে প্রিমিয়ার লীগের রেলিগেশন যুদ্ধে একদম শেষ পর্যন্ত যুক্ত থাকবে। তবে, তা হয়নি, বরং আমাদেরকে সম্পূর্ণরূপে ভুল প্রমাণিত করে তারা ঘুরে দাঁড়িয়েছে, নিজেদের আত্মবিশ্বাস খুঁজে পেয়েছে, এবং ইতিমধ্যে রেলিগেশন জোন থেকে নিজেদেরকে অনেকটা দূরত্বেও নিয়ে চলে এসেছে।

    তাদের খেলা সর্বশেষ ৮টি প্রিমিয়ার লীগ ম্যাচের মধ্যে তারা ৫টিতেই জয়লাভ করেছে, এবং বিশ্বকাপ বিরতিটিতে তারা প্রবেশ করেছে টানা দুইটি ম্যাচে জয়ের স্বাদ নিয়েই। বর্তমানে তারা প্রিমিয়ার লীগ টেবিলে রেলিগেশন জোন থেকে ৪ পয়েন্ট দূরে ১৩তম স্থানে অবস্থান করছে। বর্তমানে তাদের নিকটই রয়েছে চলতি মৌসুমে সবচেয়ে বেশি ক্লিন শিট অর্জনের রেকর্ড।

    লেস্টার সিটি’র যেসকল সমর্থকরা মাত্র দুই মাস আগেও ম্যানেজার ব্রেন্ডান রজার্সের বিদায় কামনা করছিলেন, তারাই এখন তার নামে গান বানিয়ে কিং পাওয়ার স্টেডিয়ামে পরিবেশন করেন। তার নামে লেখা তাদের বেশির ভাগ গানেই এই লাইনটি থাকে — “ব্রেন্ডান রজার্স পুরো পৃথিবীতে কেবল একজনই রয়েছেন”।

    পড়ুন:  কেন এই মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগের ট্রফি তুলবে আর্সেনাল

    খারাপ ফলাফলের একটি ছোট্ট ধারাই আবারো তাদেরকে বিপদসীমার কাছাকাছি নিয়ে দাঁড়াতে পারে, কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে এমনটিই মনে হচ্ছে যে তারা একটি উর্ধ্বমুখী ঢালে অবস্থান করছে, যেখানে লীগ টেবিলে তাদের নিচে যেসকল দল অবস্থান করছে, তাদের অবস্থা দিন দিন আরো খারাপের দিকেই যাচ্ছে।

    আমাদের করা প্রেডিকশনসমূহ কতটুকু সত্যি হল? (How they have played out)

    নিউক্যাসেল ইউনাইটেড এবার কোন একটি ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় নাম লিখাবে (Newcastle United will secure a European spot)

    আমরা যখন এই প্রেডিকশনটি করেছিলাম, তখন আমরা বেশ ভালো করেই উপলব্ধি করেছিলাম যে, এবারের মৌসুমে নিউক্যাসেল ইউনাইটেড ভালো খেলতে চলেছে। কিন্তু, তারা যে এই ভঙিতে এবং এমন ধারাবাহিকতার সহিত ভালো খেলে যাবে তা আমরা স্বপ্নেও ভাবিনি।

    আগস্ট মাসের পর থেকে নিউক্যাসেল ইউনাইটেড প্রিমিয়ার লীগে কোন ম্যাচ হারেনি। এই অসাধারণ ধারাটি ১০টি প্রিমিয়ার লীগ ম্যাচজুড়ে তারা ধরে রেখেছে, যেখানে তারা জয়লাভ করেছে ৭টিতে, এবং বাকি ৩টিতে করেছে ড্র।

    এবারের মৌসুমে এ পর্যন্ত মাত্র ১১টি গোল হজম করে তারাই বর্তমানে সম্মিলিতভাবে লীগের সবচেয়ে ভালো ডিফেন্সের অধিকারী। এছাড়া, চলতি মৌসুমে প্রিমিয়ার লীগের সর্বোচ্চ গোলদাতা দলগুলির তালিকায় তারা রয়েছে চতুর্থ অবস্থানে। তারা এখন পর্যন্ত লীগ কেবলমাত্র একটি ম্যাচেই পরাজয়ের স্বাদ গ্রহণ করেছে, এবং বর্তমানে তারা লীগ লিডার্স আর্সেনালের থেকে মাত্র ৭ পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছে।

    এবারের বড়দিনের সময়ে যে নিউক্যাসেল ইউনাইটেড প্রিমিয়ার লীগের শীর্ষ তিনে অবস্থান করবে তা আমরা ভুলেও কখনো কল্পনা করিনি।

    আপনি এমনটি বলতেই পারেন যে, সর্বদা শিরোপার লড়াইয়ে থাকা ইয়ুর্গেন ক্লপের লিভারপুল বা গ্রাহাম পটারের অধীনে টপ ফোর স্পেশালিস্ট চেলসি এবারের মৌসুমে মোটেও ভালো ফর্মে না থাকায় নিউক্যাসেল ইউনাইটেড লীগ টেবিলের উপরের দিকে উঠে আসার একটি সূবর্ণ সুযোগ পেয়েছে, কিন্তু আপনি এটিও অস্বীকার করতে পারবেন না যে, এডি হাও এর শিষ্যরা সেই সুযোগটিকে কতটা ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছে, এবং বর্তমানের পজিশনে নিজেদেরকে তুলে আনতে সক্ষম হয়েছে।

    তা যাই হোক না কেন, মৌসুমের এখনও অনেকটা সময়ই বাকি রয়েছে, এবং সবকিছু বিবেচনা করলে এমনটি বলাই যায় যে, লিভারপুল বা চেলসি’র মত দলগুলি মৌসুমের দ্বিতীয় ভাগে কামব্যাক করতেই পারে, এবং শীর্ষ চারে নিজেদের স্থানও পুনরুদ্ধার করে নিতেই পারে। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের জন্য নির্ধারিত স্থানগুলিতে থাকা নিউক্যাসেল ইউনাইটেডের জন্য মোটেও সহজ হবে না ঠিকই, কিন্তু তাদের ফর্ম ও আত্মবিশ্বাস দেখে এটি এখন প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলা যায় যে, আগামী মৌসুমে তারা ইউরোপীয় ফুটবলে অবশ্যই নাম লিখাতে চলেছে।

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবারের মৌসুমেও শীর্ষ চারে জায়গা করে নিতে ব্যর্থ হবে (Manchester United will miss out on the top four again)

    এবারের মৌসুমে প্রিমিয়ার লীগ টেবিলের শীর্ষ চারে জায়গা করে নেওয়ার জন্য এখনও পর্যন্ত নিজেদেরকে ফেভারিট হিসেবে তুলে ধরতে পারেনি এরিক তেন হাগের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, এবং মৌসুমের শেষ নাগাদও তারা সেটি করতে পারবে না বলেই বেশির ভাগ ফুটবল বোদ্ধাদের ধারণা। তবে, প্রেডিকশন করাকালীন সময়ে তারা যে পরিমাণে দুর্দশাগ্রস্ত ছিল, সেখান থেকে তারা অবেকটাই শ্রেয় অবস্থানে এখন রি য়েছে।

    পড়ুন:  প্রিমিয়ার লীগ ম্যাচউইক 29 অ্যাওয়ার্ডস

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের লাল সৈন্যরা এবারের প্রিমিয়ার লীগ মৌসুমের শুরুতেই বড়সড় হোঁচট খায়। ব্রাইটন এন্ড হোভ এলবিয়ন এর কাছে মৌসুমের প্রথম ম্যাচে ২-১ গোলে হারার পর দ্বিতীয় ম্যাচে জি-টেক কমিউনিটি স্টেডিয়ামে ব্রেন্টফোর্ড এর বিপক্ষে ৪-০ গোলে ধরাসয়ী হয় রেড ডেভিলরা। সেই অবস্থান থেকে ধীরে ধীরে নিজেদেরকে উদ্ধার করে তারা। নাটকীয়তায় ভরা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোচ হিসেবে এরিক তেন হাগের প্রথম মৌসুমে তাই রেড ডেভিলরা উন্নতির ধারাতেই অবস্থান করছে বলেই ধারণা করা যাচ্ছে।

    লিভারপুল, আর্সেনাল, এবং টটেনহ্যাম হটস্পার্স এর মত দলকে এবারের মৌসুমে হারিয়ে তারা নিজেদের শক্তিমত্তা প্রমাণ করেছে, যদিও ম্যানচেস্টার সিটি’র বিপক্ষে এতিহাদ স্টেডিয়ামে ৬-৩ গোলের নাকানিচুবানি খেয়ে তারা এটিও নিশ্চয় উপলব্ধি করেছে যে, একটি অপ্রতিরোধ্য ও এলিট দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা থেকে তারা এখনো কতটা দূরত্বে অবস্থান করছে। প্রিমিয়ার লীগের শিরোপার জন্য লড়তে হলে তাদেরকে এখনো অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হবে।

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বর্তমানে প্রিমিয়ার লীগ টেবিলের ৫ম স্থানে অবস্থান করছে, এবং এক ম্যাচ কম খেলে ৪র্থ স্থানে থাকা টটেনহ্যাম হটস্পার্স এর থেকে তারা মাত্র ৩ পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছে। শীর্ষ চারের সাথে তারা তাদের দূরত্বটি আরো কমিয়ে আনতে পারবে ঠিকই, কিন্তু মৌসুমের এখনও অনেক সময় বাকি, এবং চেলসি ও লিভারপুল রেড ডেভিলদের খুব কাছাকাছিই অবস্থান করছে। তাই, এবারের মৌসুমে তাদের জন্য শীর্ষ চারে জায়গা করে নেওয়াটা অত্যন্ত কষ্টসাধ্য হতে চলেছে। তাই, আমরা এখনো মনে করি যে, রেড ডেভিলরা টানা দুই মৌসুমের জন্য উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগে খেলার সুযোগ হাতছাড়া করতে চলেছে।

    আর্সেনাল এবার চ্যাম্পিয়নস লীগে ফিরে আসবে (Arsenal will return to the Champions League)

    মৌসুমের এই পর্যায়ে দাঁড়িয়ে এমনটিই মনে হচ্ছে যে, আর্সেনাল এবার শুধু চ্যাম্পিয়নস লীগেই পুনঃপ্রবেশ করবে না, বরং তার থেকেও বড় কিছুই অর্জন করতে চলেছে মিকেল আর্তেতা’র দলটি।

    বর্তমানে গানারস’রা প্রিমিয়ার লীগ টেবিলের শীর্ষে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি’র থেকে ৫ পয়েন্ট উপরে রয়েছে, এবং কোন দিক থেকে দেখলেও এমনটি মনে হচ্ছে না যে, তাদের এই দূর্দান্ত গতিতে অদূর ভবিষ্যতে কোন প্রকার ভাঁটা পড়বে।

    মিকেল আর্তেতা’র শিষ্যরা গত মৌসুমে ফর্মের অধারাবাহিকতার কারণে অত্যন্ত স্বল্প ব্যবধানে চ্যাম্পিয়নস লীগ খেলার দৌড় থেকে ছিটকে পড়ে। তবে এবারের গ্রীষ্মকালীন ট্রান্সফার উইন্ডোতে ম্যানচেস্টার সিটি থেকে আলেকজান্ডার জিনচেঙ্কো এবং গ্যাব্রিয়েল জেসুস এর আগমণ এবং লোন থেকে ফ্রেঞ্চ ডিফেন্ডার উইলিয়াম স্যালিবা’র প্রত্যাগমণ এবং তাদের সকলের ভালো ফর্মে থাকার কারণে আর্সেনাল যেন নতুন উদ্যমে জ্বলে উঠেছে। এসকল অসাধারণ সংযুক্তির ফলে তারা শুধু প্রিমিয়ার লীগ নয়, বরং বর্তমানে পুরো ইউরোপেরই সবচেয়ে ভালো দলগুলির মধ্যে একটিতে পরিণত হয়েছে। 

    পড়ুন:  কাতার বিশ্বকাপ ২০২২ঃ গ্রুপ পর্যায়ের ম্যাচগুলির প্রেডিকশন

    তবে, তাদের শিরোপা লড়াইয়ের ক্ষেত্রে মোক্ষম সময় হবে মৌসুমের দ্বিতীয় ভাগটিই, কারণ ম্যানচেস্টার সিটি’র মত তাদের নিকট অসাধারণ স্কোয়াড গভীরতা নেই। এছাড়া, বিশ্বকাপ থেকে তাদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়েরা হালকা চোট নিয়ে ফিরতেই পারেন। তবে, শিরোপার এই লড়াইয়ে তারা শেষ পর্যন্ত টিকে থাকবে বলেই ধারণা করা যাচ্ছে। 

    আমরা কেবলমাত্র এটি ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলাম যে গানারস’রা আগামী মৌসুমে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ খেলবে, কিন্তু এখন এসে মনে হচ্ছে যে, মিকেল আর্তেতা’র সৈন্যরা আরো বড় কিছুর পেছনেই ছুটছে। তারা ১৫ বছর পর প্রিমিয়ার লীগের শিরোপাটি আবারো ঘরে তুলতে চায়, এবং এই মুহূর্তে সেটি করার জন্য তাদেরকেই ফেভারিট মানতে হবে।

    আর্লিং হাল্যান্ড এবারের মৌসুমে কমপক্ষে ৩০টি গোল করবেন (Haaland will score 30 League goals)

    মৌসুমের শুরুতে আমরা যতগুলি প্রেডিকশন করেছিলাম, তার মধ্যে এই প্রেডিকশনটি নিয়ে আমরা সবচেয়ে বেশি গর্ববোধ করি। বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক স্ট্রাইকার আর্লিং ব্রাউত হাল্যান্ড তার ম্যানচেস্টার অধ্যায়ের শুরুতেই সব ধরণের “বুন্দেসলিগা ট্যাক্স” জাতীয় ট্যাগ থেকে নিজেকে অনেকটা ব্যবধানে নিয়ে আসতে সমর্থ হয়েছেন।

    সিটিজেনদের হয়ে খেলা তার প্রথম ৯টি ম্যাচেই তিনি ১৫ গোলের মাইলফলকটি ছুঁয়ে ফেলেন, যার মধ্যে ছিল হোম মাঠ এতিহাদে করা টানা তিনটি অসাধারণ হ্যাট্রিক। প্রিমিয়ার লীগে তেমনটি তিনিই প্রথমবার করেছেন। এছাড়া, প্রিমিয়ার লীগের ইতিহাসে দ্রূততম খেলোয়াড় হিসেবে তিনি ১০ গোলের মাইলফলক অতিক্রম করেন, এবং প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে তিনি পর পর ৪টি প্রিমিয়ার লীগ অ্যাওয়ে ম্যাচে গোল করেন।

    এছাড়াও, তার করা হ্যাট্রিকগুলির মধ্যে একটি ছিল চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে। লীগটিতে দ্রুততম খেলোয়াড় হিসেবে তিনি দুইটি হ্যাট্রিক করেন। গোলস্কোরিং প্রচুর রেকর্ড তিনি ইতিমধ্যে ভেঙে ফেলেছেন।

    লীগে এ পর্যন্ত ১৩টি ম্যাচ খেলে তিনি সর্বমোট ১৮টি গোল করেছেন। আমাদের ৩০ গোলের প্রেডিকশনের পথে তিনি ইতিমধ্যে অনেকটা এগিয়ে গিয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে এমনটিই ধারণা করা যাচ্ছে যে, প্রিমিয়ার লীগে এক মৌসুমে সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার মাইলফলকটিও তিনি ছুঁয়ে ফেলবেন। বর্তমানে সেই রেকর্ডটি রয়েছে লিভারপুলের মোহাম্মদ সালাহ্ এর দখলে।

    নরওয়ে এবারের বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে না পারায় আগামী প্রায় এক মাসের জন্য বিশ্রাম নেওয়ার সুযোগ পাবেন আর্লিং হাল্যান্ড, এবং সম্পূর্ণরূপে পরিষ্কার মস্তিষ্ক নিয়ে তিনি আবার মাঠে নামতে পারবেন। বিশ্রাম পেয়ে তিনি আরো বিপজ্জনক হয়ে উঠতেই পারেন।

    Share.
    Leave A Reply