প্রেডিকশন (Prediction)

    ইকুয়েডর ০ – ১ সেনেগাল

    ভেন্যুঃ খলিফা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম

    হয়তো এটিই গ্রুপ ‘এ’ এর সেই নির্ধারণী ম্যাচটি হবে, যার মধ্য দিয়ে নিশ্চিত করা যাবে যে, গ্রুপটির দ্বিতীয় স্থান কোন দল অধিকার করবে, এবং পরের রাউন্ডে যাওয়ার সুযোগটিও বাগিয়ে নিবে। গ্রুপ পর্যায়ের শেষে এসে এমন বিশাল গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচে সেনেগালের মুখোমুখি হতে চলেছে দক্ষিণ আমেরিকার উদ্যমী দল ইকুয়েডর।

    ফর্ম বিবরণীঃ ইকুয়েডর (Form Guide: Ecuador)

    লা ত্রি খ্যাত ইকুয়েডর তাদের সাম্প্রতিক বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথমবারের মত দ্বিতীয় রাউন্ডে অগ্রসর হওয়ার লক্ষ্যেই এই ম্যাচটিতে খেলতে নামবে। এটি কেবলমাত্র তাদের ইতিহাসের চতুর্থ বিশ্বকাপ। একবিংশ শতাব্দী শুরুর পর থেকে তারা দুইবার বিশ্বকাপে খেলে দুইবারই গ্রুপ পর্যায় থেকে বাদ পড়েছে। শুধুমাত্র গ্রুপ পর্যায়ে খেলে খুশি না থেকে এবার টুর্নামেন্টটিতে আরো বড় প্রভাব ফেলারই চেষ্টা করবেন তারা।

    যদিও তারা তাদের খেলা সর্বশেষ ৬টি ম্যাচে অপরাজিত রয়েছে, তবে তারা তার মধ্য থেকে মাত্র ২টিতেই জয়লাভ করতে পেরেছে, এবং বাকি ৪টিতেই করেছে ড্র। এ যাত্রায় তারা গোল করেছে মাত্র ৩টি, এবং গোল হজম করেছে ১টি, আর্জেন্টিনার বিপক্ষে। এ থেকে বোঝা যায় যে, তারা রক্ষণভাগে শক্তিশালী হলেও গোলের সামনে বেশ দূর্বল।

    ফর্ম বিবরণীঃ সেনেগাল (Form Guide: Senegal)

    তেরাংগা লায়নস খ্যাত সেনেগাল হল বর্তমান আফ্রিকান চ্যাম্পিয়ন, এবং এবারের বিশ্বকাপে আফ্রিকানদের সবচেয়ে বেশি আশা সেনেগালকে নিয়েই, যেন তারা কমপক্ষে রাউন্ড অব ১৬ তে খেলতে পারে।

    চলতি বছরে মোট ১২টি ম্যাচ খেলে সেনেগাল কেবলমাত্র একটিতে পরাজিত হয়েছে। মিশরের বিপক্ষে সেই ১-০ গোলের হারটিও এসেছিল সেই জানুয়ারি মাসে, আফকন এর গ্রুপ পর্যায়ে। এছাড়া, তাদের খেলা সর্বশেষ ৫টি ম্যাচেই তারা অপরাজিত রয়েছে, এবং অনেক ভালো ফর্ম নিয়েই তারা বিশ্বকাপে প্রবেশ করেছে।

    ২০০২ সালের বিশ্বকাপে সেনেগাল শেষ আটে খেলেছিল, এবং এবারের বিশ্বকাপেও তাদের তেমনটিই স্বপ্ন থাকবে। আর সব ঠিকঠাক থাকলে তার চেয়ে বেশিও অর্জন করার ক্ষমতা তাদের রয়েছে। এই ম্যাচটি জেতা সেই লক্ষ্যে তাদের জন্য একটি বিশাল ধাপ হবে।

    পড়ুন:  টটেনহাম বনাম নটিংহাম ফরেস্ট প্রিভিউ

    ম্যাচটিতে যা যা ঘটতে পারে (How the game could go)

    এটিই হতে চলেছে এই দুই দলের মধ্যকার প্রথম ম্যাচ, এবং ম্যাচটি উভয়ের জন্যই হতে চলেছে সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ, কেননা এখানে যে জিতবে হয়তো সেই গ্রুপের দ্বিতীয় দল হিসেবে উঠবে রাউন্ড অব ১৬ তে। যেহেতু একই দিন গ্রুপ ফেভারিটস নেদারল্যান্ডস খেলবে স্বাগতিক কাতারের বিপক্ষে, সেহেতু এই দুই দলই জানে যে এটি তাদের জন্য একটি বাঁচা মরার লড়াইয়েই রূপ নিবে।

    ম্যাচটি ধীরগতিতে এগুতে থাকবে, কারণ দুই দলই বেশ সতর্কতার সাথে ম্যাচটিকে এপ্রোচ করবে। তবে, শেষ পর্যন্ত সেনেগালের নিকট সেই অতিরিক্ত গুণমান উপস্থিত থাকায় তারাই জয় অর্জন করে নিতে পারবে, এবং পরবর্তী রাউন্ডে অগ্রসর হবে।

    Share.
    Leave A Reply