মিউনিখ বে এর বনাম ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড প্রিভিউ

 

মিউনিখ বে এ এই মৌসমে একটা ভালো শুরু করেছে তাদের সিজনে, যেমনটা শেষই হয়েছে গত আলাপনযোগ্য খেলাপদের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ দিনে।

 

মিউনিখ বে হারিয়েছিল জার্মান সুপার কাপ ফাইনালে, RB লাইপজিগের বিপক্ষে ৩-০ হেরে ফেলে। তার মুখপত্র থমাস টুচেলের ক্রেডেন্শিয়ালগুলি নিয়ে আরও সংশয় দেওয়া হল। তবে, তারা বৃহদায় জার্মান লিগায় মজার ভাবে চালু হয়েছে উন্নতি নিয়ে, যেমন ভালো স্বাদের জয়ের মাধ্যমে। ৪-০ সংখ্যক জয় এর মাধ্যমে দলটি প্রথম সপ্তাহে দলিয়া খেলায় পরদিয়েছে বেমড়ারিং ব্রেমেন।

 

 

গার্মান ফুটবলে হারি কেন যেন নতুন টানটানি পাচ্ছে বায়ার্ন। খেলা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতেই, যাই হোক অচ্ছা হয়ে বেশি হয়নি। বায়ার্ন মিউনিখ শুরু করেছিল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেদের বিপক্ষে এই খেলার জন্য সেই রূপটিকেও দেখানোর মতো সুস্পষ্ট জিম্মা পেয়ে ছিল দল। অবশ্য মিউনিখ ক্লাব এর ইতিহাসে এই বিরতি আছে। ২০১৯/২০ সিজন থেকে চার অনুরুণিতা সব থেকেই ঘৃণামূলক ভাবে খেলা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে।

 

উপস্থিতি দায়িত্ব

 

ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের যে দল দখল দেওয়া উত্সাহ করে, সেটার শুরু থেকেই দলটির বিফল প্রদর্শন হয়নি। ওপটিং উইকেন্ডে জয়ে তারা তামনা পেছে তাটকা খেলায় একটি ইরানময় জিতেছে, দ্বিতীয়বার তখন ছিল বস্টন নটিংহ্যাম ফরেস্টের বিপক্ষে। তবে, তাদের হারানোর পেওয়ার যদি কথা বলা যায়। আর্সেনালের বিপক্ষে ৩-১ হেরে অভিনবভাবে টকটকে হট্টগোলাপ্প করে ফেলেছে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড। তাদের শুরু করা হয়েছিলো চাম্পিয়ন্স লিগের দল সিজন, যাতে দলটি বিরতি নিয়েছিল ত্রিমাসিকের দিকে পরে মারনে ব্যর্ধন।

 

ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের একজন খুবই তুষার আঁকা খেলোয়াড়। যখন তারা চাম্পিয়ন্স লিগে বালিষ্ঠ্য ধরল, সেই সময় তাদের দলকে গ্রুপ স্টেজে থেমে যেতে হয়েছিল PASSAYN এবং ইস্তাম্বুল বাশাকশের পিছনে তৃতীয় দল দিয়ে।

 

দ্বীন বা দবাবড়

মিউনিখ বে এটাও দেখিয়েছিল যে দুই বার পুরো ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড। তবে, ঈংরজ পুল হারাল না, ১৯৯৯ সালের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে আপন করেছিল ম্যাঞ্চেস্টার আর্সেনাল।

পড়ুন:  চেলসি বনাম ক্রিস্টাল প্যালেস প্রিভিউ এবং প্রেডিকশনঃ অল ব্লুস'রা কি তাদের অধঃপতন থামাতে পারবে?

 

 

সময় ও সিজন পরিবর্তন হয়েছে এবং ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের উচ্চতম স্বশীর্ষ কর্মসূচিকে ছেড়ে বাচ্চি দিয়ে উঠছে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড। তাঁদের অমার্জিত রেকর্ডও ঠিকমতো নয় এবং এটি জানতে হবে যে দলটি আশ্চর্যজনক ধাঁধায় উড়ে যাওয়ার জন্য সবকিছুই দরকার।

 

দলের সংবাদ

তাহলে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে সুত্র নির্ধারণ করতে গিয়ে প্রকৃত পরিবর্তনগুলি করা যাবে না বায়ার্ন মিউনিখের। মিডফিল্ডে জোশুয়া কিমিচ ও লিওন গোরেটজকা চালিয়ে তাদের দল সমর্থিত হবেন, একইভাবে থমাস মুল্লার হারি কেনকে সমর্থন দেয়ার জন্য খুব বড় প্রচেষ্টা করে। যখন তারা হারি কেনের নিচে খেলবেন তাহলে তারা শুধুমাত্র একটি দল মনে হয়, আর সার্জ নাব্রি ছাড়াও তাদের খৌঁজে নিজেকে দেখানোর জন্য। মধ্যমবিন্দু হিসাবে সানে ও হাওয়ায়ে ব্যবস্থা নিয়ে গড়া হবে। তারপরও, ক্লাব ক্যাপ্টন ম্যানুয়েল নয়ের ও রাফ্যায়েল গুরেরিও খেলার মধ্যে কাজ করার আশা করা যায় না,

 

Share.
Leave A Reply