নটিংহ্যাম ফরেস্ট বনাম ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড প্রাকদর্শন:

‘নিউ ম্যানেজার বাউন্স’ একটা একটা যেটা সম্পূর্ণ প্রভাব দেখিয়েছিল, নোটিংহ্যাম ফরেস্ট আশ্রয়ে এসেছিল ফল নিয়ে উঠেছে নিউকাসলকে ৩-১ হারিয়ে আর জিতেছে তাদের প্রথম জয় নুনো এসপিরিটু শান্তোর সহায়তায়। পর্তুগীয় মুখোশ বলেছেন তাঁর দলের প্রদর্শন “একদম ঠিক” এবং এর ফলে এক সাথে তাদের শপথপত্রা তাড়ানো হয়েছে ৭টি ম্যাচের অবিজয়রাশি (এক জিতে এক লংস) প্রিমিয়ার লিগে (পিএল)। তবে, অন্য কোথায় ফলের নয়ের মানে তাদের এখনও অবতরণ সুইচয়েশন ছাড়িয়ে হয়নি প্রশাসনিক গীতিচারের মাধ্যমে দলের নিচে মাঝানো 2 পয়েন্ট।

 

নুনো তাঁর নোদস্থান হারিয়ে দিলেন ও এটা ছিল ফরেস্টের পিএলে 4 টীমের অনুকরণীয় পরাজয়। সেটা হচ্ছে একাডেমিতে 5 টি নিন্সত পরাজয়ও এরকম অবস্থান পেয়েছিল প্রথম ১৯৯৯ সালে এরকম একটি ধামাবম্বা যায়গাতে যখন তাঁনাম্যরের নিয়ের অবস্থানটি ছিল হয়ে পরিমাণগুলিতে তিড়ব্বোটিয় নেট হারির মধ্যে, চমকিয়ে এল দলের আগামী প্রতিপক্ষের নিয়মিত 8-১ পরাজয়যুদ্ধ, ইউনাইটেড ফয়বারে। মাত্র ১ উন্নতিভূক্তির পরেও।

 

বমল রেড ডেভিলসছিল বিসমিল্লাহের পরটাই তাদের খাঁটি তালে, একটি স্পার্কযুক্ত ৩-২ বক্সিং ডে জয় হয়ে উঠলো অ্যাস্টন ভিলাকে নিয়ে তাদের সর্বাধিক-তেরটি জয় আদায় করার বর্তমানের সময়রেকর্ড হিসাবে। ম্যানেজার এরিক টেন হাগের প্রায়শ্চিতি মাধ্যমের ম্যাসেজ মতবাদ এর ক্ষেত্রে ফল নিয়েছিল  ‘আস্থা রাখতে চাই’ আর হয়েছিল ম্যানেজারের দায়ে আরও খুঁজে পাইড়ের চায়াও!!!মজাই খেলাড়ীর দ্রুতের ডাচ্ছিল তাঁতে বিরামিতি বসিয়ে দিন ছাড়িয়ে দিল ইউনাইটেড ফেলেইলো এখনো ছারা, আবার এগো কিছু সময় পরে তাদের গোল আশা পাইয়ে গেল কাছোয়াচই, প্রুস্ত তাঁাদের পিএলে এই দফা দ্বারা সুমিলেছিল পর্বপূর্ণযুদ্ধের পরে পর্বের শেষ অংশে চলায়।

 

খেলোয়াড়রায়

পূর্ব ইউনাইটেডের মাঝে যাঘেন্য বিছড়েছেন একসামী আন্তনি এলাঙ্গা, এখন যায়গা পেয়েছেন নৌনুন পিএলের এই মুদ্রায় 9 গোলসংশ্লিষ্ট (জি৪, সামিল)এর মধ্যে, যের মধ্য দুটি অ্যাসিস্ট হয়েছেন যাঁতার শক্তিসাধ্বর হয়নি আজ্ঞারেত অ্যান্টন্য ইলাঙ্গা। ২ দফার জিবনয়ে তার দলের ব্যাদী হয়েছেন ও আস্টন ভিলায় উঠলেন (একদধ, এই সিজনের এখনও এরকম একটি Lংসে দমন করান!!!)

পড়ুন:  টটেনহ্যাম হটস্পার্স বনাম ব্রাইটন & হোভ এলবিয়ন (Tottenham Hotspurs Vs Brighton & Hove Albion) 13

 

হট-স্টাটস সংখ্যা

ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড এর সূত্র অনুযায়ী প্রিমিয়ার লিগে খেলা ম্যাচের গড়গণনা 2.42 গোলের মধ্যে হয়েছে।

 

Share.

Leave A Reply